প্রেম ও একটি আইফোন কাহিনী। বাংলা রম্য গল্প

0
46

ব্রেকাপের পর কেটে গেছে দীর্ঘ ছয়টা মাস। এই ছয় মাসে মেয়েটা ছেলেটাকে ভীষণ মিস করেছে। প্রতিটা মুহুর্তে মিস করেছে। শেষমেশ এক রাতে তার ফিল হলো সে আসলে ছেলেটাকে এখনো ভালোবাসে। এফবিতে কালো হয়ে যাওয়া নামটার প্রিভিয়াস ম্যাসেজ ঘেটে ফোন নাম্বার বের করে মেয়েটা কল দিলো ছেলেটাকে।

তিনবার রিং হওয়ার পর ফোনটা রিসিভ হলো। ওপাশ থেকে ভেসে এলো ভালোলাগার সেই কণ্ঠস্বর!

– হ্যালো ফারিয়া, সারাদিন কই ছিলা তুমি?

– মানে? হ্যালো! কি বলছো?

– ওহ জেবিন! বাবু তুমি ভালো আছো?

– আমি তো জেবিন না।

– ওহ শিট, সাদিয়া। আমি স্যরি, আমি ভাবছি জেবিন।

– আমি সাদিয়া ও না!

– নিশাত, তাইনা? তোমাকে কতবার বলবো আমার এই জিপি নাম্বারে কল দিবা না। কতবার বলবো? তুমি জানো এই ফোন আমার আম্মু ধরতে পারে। তাইলে আমাদের রিলেশানের পুরা বারোটা!

– হোয়াট! নিশাতটা কে?

– ইয়ে তুমি নিশাতও না? তাইলে প্রমি, রাইট? তুমি জানো আমি তোমাকে কত্তো মিস করি!

– ওহ মাই গড! এরা কারা? আর তুমি আমার কন্ঠ শুনেও!

– ইয়েস! গট ইট! শ্রাবনী বেবি আমি তোমার কন্ঠ চিনবো না এইটা কোনো কথা বললা!

– হু দ্যা হেল ইজ শ্রাবনী? আমি গেছি ছয়মাসও হয়নি আর তুই!

– ছয় মাস! ওএমজি, রুম্পা তুমি আমাকে পরিচয় তো দিবা। ইউ নো আমি গতকাল রাতেও তোমাকে স্বপ্নে দেখেছি। দেখি যে আমি আর তুমি হাত ধরে নদীর পাশে কাশবনের মধ্যে!

– চুপ কর। কুত্তা। এই কাশবন আমি তোর!

– এভাবে কথা বলতেছ ক্যান বাবু? তুমি রূম্পা না? তাইলে কে? তানহা, মাহি, অবন্তি, সানজিদা, সোমা, প্রিয়া, মালিহা, নুসরাত, রাইসা, বৃন্তি, আনিকা!

– আমি শান্তা!

– শান্তা-আ-আ! তুমিইই… গাধা মেয়ে নাম বলতে এতো দেরি করে কেউ? ইউ হ্যাভ নো আইডিয়া আমি তোমাকে এখনো কতটা ভালোবাসি। কতটা চাই। প্রতিটা মুহুর্তে আমার চোখের সামনে শুধুই তোমার সুন্দর মুখটা ভাসে। বাট একটা কথা, ইয়ে, মানে, তুমি কোন শান্তা? ঢাকা মেডিকেলের তানজিমা শান্তা, নাকি ড্যাফোডিলের শান্তা ইসলাম? যার সাথে সাজেক ট্যুরে গিয়ে প্রেম হলো!

– আমি জগন্নাথের শান্তা!

– ওহ, ঐ যে গালে টোল পড়ে, গত বছরের নভেম্বর- ডিসেম্বর দুই মাস আমাদের রিলেশান ছিলো। শান্তা তুমি জানো ওই দুইটা মাস আমার জীবনের সবচেয়ে সুন্দর মাস। সবচে ভালোলাগার সময়! আমি এখনো তোমাকে ছাড়া আর কিচ্ছু ভাবিনা। আর কোনো মেয়েকে ভাবিনা। ওয়েট, ভাবনা! হ্যা ভাবনা। আচ্ছা তোমার একটা বান্ধবী ছিলো না, ঐ যে ভাবনা নাম?

– ইইই…

– ইয়েস, ট্রিপল ই। নর্থ সাউথে ট্রিপল ই নিয়ে পড়তো যে মেয়ে। ওর ফোন নাম্বারটা দিতে পারবা? প্লিজ!

পরিশিষ্ট: একটা আইফোনের আত্মজীবনী

আমি আইফোন সেভেন প্লাস। আমি শান্তা নামে একটা সুন্দর মেয়ের সাথে থাকি। নরম মনের এই মেয়েটা আমাকে ভীষণ ভালোবাসে। নিজের সন্তানের মত আদরে রাখে। কিন্তু আজ কি হলো জানি না। আমাকে খুব জোরে একটা আছাড় খেতে হলো।

প্রথমে ভাবলাম মনে হয় আমি আমার মালকিনের ভুলে হাত থেকে পড়ে গেছি। কিন্তু না, পরক্ষণেই ভুল ভাঙলো। শান্তাই আমাকে ধরে আছাড় মেরেছে। আমার মেরুদন্ডের কশেরুকা টুকরো টুকরো হয়ে গেছে; মাথাও ফেটে চৌচির।আমি মনে হয় আর বেশিক্ষণ বাঁচবো না।

পড়ার পর জ্ঞান ছিলো কিচ্ছুক্ষণ। শুনলাম আমার মালকিন যেন কোন ছেলের নাম ধরে কুত্তার বাচ্চা বললো। তারপর সব অন্ধকার। প্রচুর ব্লিডিং হচ্ছে, নিশ্বাস বন্ধ হয়ে আসতেছে, হে পৃথিবী বিদায়!

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here